সুপাড়ি খাওয়ার পুষ্টিগত উপকারীতা কী? এর কোনো অপকারিতা আছে কি?

সুপারি কী ?

সুপারি এরিকাসিয়া (Arecaceae) পরিবারের এরিকা গণের একটি ফল। এর বৈজ্ঞানিক নাম আরিকা কাটেক্যু (Areca Catechu)। ইংরেজিতে বিটল নাট নামে পরিচিত। একটি সুপারি গাছ নারকেল গাছের মতো লম্বা হয়। সুপারি বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান অর্থকরী ফসল। এছাড়াও ভারক, শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, পাকিস্তান, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, চিন প্রভৃতি দেশে সুপারি চাষ করা হয়। সুপারি গরম এবং অ্যাসাডিক প্রকৃতির, তাই সীমিত পরিমাণে এটি গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

সুপারি খাওয়ার উপকারিতা

১. স্ট্রোক : সুপারি খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বলার সঙ্গে সঙ্গে এর ব্যবহার স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ফ্ল্যাভোনয়েড, অ্যালকালয়েডস, টের্পেনয়েডস, ট্যানিনস, সায়ানোজেনিক, গ্লুকোসাইড, আইসোপ্রেনয়েড, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং ইউজেনল জাতীয় বিশেষ উপাদানগুলি লাল সুপারির পাতায় পাওয়া যায়। এই সমস্ত উপাদানগুলি স্ট্রোক (মানসিক এবং কার্ডিওভাসকুলার) ঝুঁকি কমাতে উপকারী হতে পারে

()। এই কারণে অনেকের বিশ্বাস, যে লাল সুপারি পাতার সঙ্গে সুপারি ব্যবহার স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। তবে এ বিষয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন।

২. সিজোফ্রেনিয়া : সিজোফ্রেনিয়া (একটি মানসিক ব্যাধি) রোগের ক্ষেত্রেও সুপারি উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। আসলে সুপারির মধ্যে বিভিন্ন ধরণের কার্যকরী ফ্ল্যাভোনয়েড রয়েছে, যার মধ্যে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি প্রভাব উপস্থিত। এই কারণে সুপারি অনেক মানসিক এবং স্নায়ুতন্ত্রের সমস্যা যেমন, অ্যালজাইমার, পার্কিনসনস, অ্যামিওট্রোফিক ল্যাট্রাল স্ক্লোরোসিস, হান্টিংটন এবং সিজোফ্রেনিয়া থেকে মুক্তি পেতে কার্যকরী হতে পারে

৩. দাঁতের ক্যাভিটি থেকে মুক্তি : যদিও অতিরিক্ত সুপারি খাওয়ার কারণে দাঁত এবং মাড়ির ক্ষয় লক্ষ্য করতে পারেন, কিন্তু সীমিত মাত্রায় এর ব্যবহার দাঁতের নানা সমস্যা দূর করতে পারে। যেমন সবচেয়ে সাধারণ সমস্যা ক্যাভিটি দূর করতে এটি দারুণ কার্যকরী। বিশেষজ্ঞদের মতে এতে অ্যান্থেলিমিন্টিক এফেক্টস (পরজীবী ধ্বংসকারী) রয়েছে, যা ক্যাভিটির সমস্যা দূর করতে উপকারী হতে পারে

৪. মুখের শুষ্কভাব থেকে মুক্তি : এটি গবেষণায় দেখা গেছে, সুপারি চিবালে মুখে অতিরিক্ত লালা উৎপাদিত হ ()।সেক্ষেত্রে শুষ্ক মুখের সমস্যা থাকলে সুপারি খেতে পারেন।

৫. ঠোঁটের ফোসকা : ঠোঁটে অনেক সময় ফোসকা মতো হয়ে যায়, চামড়া উঠে যায়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে লাল সুপারি ব্যবহার করতে পারেন। বলা হয়, লাল সুপারি এমন একটি উদ্ভিদ যার মধ্যে নানা গুরুত্বর সমস্যা সমাধানের বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যা ঠোঁটে ফোসকা (মুখে আলসারের লক্ষণ) নিরাময়েও সাহায্য করতে পারে। তবে এই বিষয়ে দৃঢ় প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

৬. পিঠে ব্যথা : পিঠের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে লাল সুপারি ব্যবহার করতে পারেন, উপকার পেতে পারেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, লাল সুপারির গাছ নানা রোগগ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়, যেমন জয়েন্টে ব্যথা এবং গাউট (এক ধরণের আর্থ্রাইটিস যা জয়েন্টে ব্যথা এবং প্রদাহ সৃষ্টি করে) সহ। এছাড়াও সুপারিতে অ্যানালজেসিক (Analgesic) বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা পিঠে ব্যথায় উপকারী ফল দিতে পারে। কোমর ও পিঠে ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে এর পাতার রসের পেস্ট তৈরি করে লাগানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন অনেকে ।

%d bloggers like this: