অনলাইন কোর্স তৈরি করে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

অনলাইন কোর্স

অনলাইনে টাকা আয়ের অন্যতম একটি মাধ্যম হল অনলাইনে কোর্স। বর্তমানে উঠতি একটি ইন্ডাস্ট্রি হল অনলাইন কোর্স।

আপনার যদি কোন একটি বিষয়ে ভাল জানাশোনা এবং দক্ষতা থাকে তাহলে সেই বিষয়ের উপর কোর্স তৈরি করে বিক্রি করতে পারেন। অফলাইনে কোর্স এবং অনলাইনে কোর্সের মধ্যে বড় একটি পার্থক্য হল যে অফলাইনে বারবার ক্লাস করাতে হয় আর অনলাইনে একবার একটি বিষয়ের উপর ক্লাস তৈরি করে একই কোর্স বারবার বিক্রি করা যায়। স্কুল কলেজের পাঠ্য পুস্তকের বিষয় থেকে শুরু করে খাবার রান্নার কোর্স এখন অনলাইনে পাওয়া যায়।

অনলাইন কোর্স কি? অনলাইন কোর্স তৈরি করে কিভাবে টাকা আয় করা যায়? কি পরিমান আয় করা সম্ভব অনলাইন কোর্স থেকে? কিভাবে শুরু করা যায় অনলাইন কোর্স তৈরির ব্যবসা? অনলাইন কোর্স তৈরির ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা খরচ হবে? কিভাবে অনলাইন কোর্সের জন্য সদস্য সংগ্রহ করব? এসকল বিষয় নিয়েই আজকের আলোচনাটি সাজানো হয়েছে।

অনলাইন কোর্স কি?

অনলাইনে ক্লাস, টিউটোরিয়াল, পরিক্ষা, ব্যবহারিক প্রয়োগ ইত্যাদির মাধ্যমে কোন নির্দিষ্ট বিষয় অন্যকে শিখানোর প্রক্রিয়াটিই হল অনলাইন কোর্স। এই কোর্স নির্দিষ্ট মেয়াদি হতে পারে। মনে করুন আপনার এইচটিএমএল, সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট এর উপর খুব ভালো দক্ষতা আছে। আর কোন বিষয় অন্যকে ভাল করে বুঝাতে পারার গুনটিও আপনার মধ্যে আছে তাহলে আপনি ঐ বিষয়ের উপর কোর্স তৈরি করতে পারবেন। অনলাইন কোর্স বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন ধরুন লাইভে এসে কোর্স করা, ভিডিও তৈরি করে সেই ভিডিও বিক্রি করা।

অনলাইন কোর্সের বিষয়বস্তু কি হতে পারে, এই প্রশ্নটা অনেকেই করে থাকেন। আপনি যেই বিষয়ে বেশি পারদর্শী সেই বিষয় নিয়েই কোর্স করানো শুরু করে দিতে পারেন। মনে করুন আপনি মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট এ এক্সপার্ট। তাহলে এইসব বিষয় নিয়েই শুরু করতে পারেন। এইচটিএমএল, সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট, পাইথন, এপস ডেভেলপমেন্ট, ইংরেজি, আরবি, কুরআন শিক্ষা, সংগীত প্রশিক্ষন ইত্যাদি কোর্সের বিষয়বস্তু হতে পারে।

অনলাইন কোর্স তৈরি করে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

অনলাইন কোর্স থেকে টাকা আয়ের প্রথম শর্ত হল কোর্স বিক্রি করা। আর কোর্স বিক্রি করতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয় হল ভাল মার্কেটিং। মার্কেটিং এর জন্য ফেসবুক ইন্সট্রাগ্রামে আপনাকে সবসময় সরব থাকতে হবে। সাথে বিজ্ঞাপন প্রচার করবেন। বিজ্ঞাপন প্রচার এর ক্ষেত্রে ফেসবুক ইন্সট্রাগ্রামের পাশাপাশি ইউটিউবও ব্যবহার করবেন।

কোনো টিউটোরিয়াল তৈরি করে সেটা থেকে আয়ের দুটি মাধ্যম আছে। একটি হল ইউটিউব বা ফেসবুকে ভিডিও আপলোড দিয়ে সেখান থেকে আয়। আর আরেকটি হল কোর্স আকারে বিক্রি করা। কোর্স আকারে বিক্রির জন্য তৈরিকৃত ভিডিও এর মান হতে হবে ভাল। আবার অনলাইন লাইভেও কোর্স করানো যেতে পারে। এর জন্য মেসেঞ্জার, হোয়াটসএপ, জুম ইত্যাদি ব্যবহার করে লাইভ কোর্স করানো যায়। লাইভ কোর্সের জন্য পেমেন্ট এডভান্স নিয়ে নিবেন।

আর একটি কথা না বললেই নয় আপনি যদি কোর্স বিক্রি করার চিন্তা ভাবনা করেন তাহলে আগে আপনাকে ঐ সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল ইউটিউবে আপলোড দিতে হবে। এর ফলে আপনি কেমন কোর্স করাবেন তার সম্পর্কে মানুষ একটা আইডিয়া পাবে। তা ছাড়াও আপনার পরিচিতিটা একটু বাড়বে। এতে মার্কেটিং করতে সুবিধা হবে। অনলাইন কোর্স এর ব্যবসা একটু ধৈর্যের। প্রথমে বাজার ধরতে কয়েক বছর পর্যন্ত লাগতে পারে। কাস্টমার বা ভিউয়ার আসেনা বলে আপনি যদি নিয়মিত ভিডিও আপলোড বন্ধ করে দেন তাহলে এই ব্যবসা আপনার জন্য নয়।

কি পরিমান আয় করা সম্ভব অনলাইন কোর্স থেকে?

অনলাইন কোর্সের মাধ্যমে ঠিক কত টাকা আয় করতে পারবেন সেটা নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। তবে আয়ের পরিমান অনেকটা নির্ভর করে আপনার কোর্সের মান এবং বিষয়বস্তুর উপর। আবার কোর্সের মান এবং চাহিদার উপর নির্ভর করে আপনাকে কোর্সের দাম নির্ধারন করতে হবে। সাধারনত অনলাইন কোর্সের দাম ১০০ টাকা থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

কিভাবে শুরু করা যায় অনলাইন কোর্স তৈরির ব্যবসা?

অনলাইন কোর্স তৈরির ব্যবসা শুরু করতে প্রথমে আপনাকে ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক পেইজ খুলে সেখানে নিয়মিত ভিডিও আপলোড দিতে হবে। ভিডিও এর কন্টেন্ট অবশ্যই কোর্সের বিষয় সম্পর্কিত হতে হবে। এভাবে নিয়মিত ভিডিও আপলোড দিলে ফলোয়ার বৃদ্ধি পাবে। তারপর কোর্স বিক্রি শুরু করতে পারবেন।

নতুন ইউটিউব চ্যানেল বা ফেসবুক পেইজ খুলেই কোর্স বিক্রি শুরু করা উচিত হবে না। ফলোয়ার এবং পরিচিতি বাড়লে তারপর অনলাইন কোর্স বিক্রি শুরু করলে সেটা সুবিধাজনক হবে।

কিভাবে অনলাইন কোর্সের জন্য সদস্য সংগ্রহ করব?

অনলাইন কোর্সের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয় হল সদস্য সংগ্রহ করা। আগেই বলেছি অনলাইন কোর্সের সদস্য বা কাস্টমার সংগ্রহের জন্য আপনাকে ভালভাবে মার্কেটিং করতে হবে। আপনার ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক পেইজে কোর্সের প্রোমোট করবেন। ভিউয়ারদেরকে বুঝাবেন তারা কেন আপনার কোর্সটি করবে। তা ছাড়া বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারবেন। আর একটি ভাল উপায় হল স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদেরকে টার্গেট করা। তাদেরকে ডিসকাউন্টে কোর্স প্রদান করবেন। এতে ভাল মার্কেটিং হবে।

 

এই ব্যবসায় আপনার সফলতা প্রায় পুরোপুরি নির্ভর করে কোর্সের মানের উপর। তাই মানের দিকে সবচেয়ে বেশি নজর দিবেন। কোর্স প্রস্তুত করার আগে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখবেন। সেগুলো হল আপনার কোর্সের গ্রাহক কারা? তারা কেন আপনার কোর্সটি করবে? অন্যদের থেকে কোর্স না করে আপনার কাছ থেকে কেন করবে? এইসব বিষয় মাথায় রেখে কাজ করলে কাজের মান ভাল হবে।

%d bloggers like this: